আর ক-ক’টি উপত্যকা পেরোবেন কালীকিশোরেরা?

দেবাশিস আইচ

 

‘‘বিস্তীর্ণ পাররে অহংখ্য জনরে
হাহাকার শুনিউ
নিঃহব্দে নীরবে
বুড়াহ লুইত তুমি
বুড়াহ লুইত বুয়া কিয়ো?’’

– ভূপেন হাজারিকা

দীপক বরকাকতি কি আরও এক উপন্যাসের ঝাঁপি মেলে ধরবেন? আরও এক উপত্যকা পেরিয়ে যাওয়ার গল্প। কালীকিশোর দত্তের কি নাম উঠেছে এনআরসি’র তালিকায়? তাঁর পরিজনদের মধ্যে কেউ বাদ পড়ে যাননি তো? না কি তিনি আজও বাংলাদেশি? সুরমা থেকে বরাক, বরাক থেকে ব্রহ্মপুত্র — উপত্যকার পর উপত্যকা পেরিয়ে এসেছেন ছিন্নমূল কালীকিশোর ও তাঁর পরিবার।

এই কালীকিশোর এবং কালীকিশোরদের জীবনপ্রবাহ উপন্যাসের স্রোতে মেলে ধরেছিলেন ঔপন্যাসিক দীপককুমার বরকাকতি। সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার প্রাপ্ত এই অসমিয়া উপন্যাস ‘উপত্যকার পরা উপত্যকায়’ প্রকাশিত হয়েছিল ২০০২ সালে। সিলেট থেকে করিমগঞ্জ, করিমগঞ্জ থেকে নগাঁও। দেশভাগ, ভাষা ও জাতি বিদ্বেষ, বঙাল খেদাও, নেলি, অসম আন্দোলন — একের পর এক বিদ্বেষের বীভৎস ঢেউয়ে ভেসেছে কালীকিশোরের জীবন-উপত্যকা। সেই উপন্যাস পাঠের স্মৃতি ফের ভেসে উঠল এনআরসি বা জাতীয় নাগরিক পঞ্জি’র ঢেউয়ে ঢেউয়ে। সেই ঢেউয়ের হাজারো চলনে অজস্র প্রশ্নের উত্তর অমীমাংসিত। ভবিষ্যতের কথা জানা নেই। তবু, স্মৃতি থেকে বর্তমানে, বর্তমান থেকে স্মৃতির উপত্যকায় — এ এক ব্যক্তিগত পাঠচারণ।

Continue reading