অনির্বাণ ঘোষের কবিতা

আমি অনির্বাণ/ আদতে নাবিক, সহজ কথা বুনতে/ ভালবাসি কখনো কবিতা হয়/ অথবা গান লিখে যাই আর/ ভেসে বেড়াই

প্রলাপের প্রতি

রাত বিরেতের চাঁদ যদি
গলার কাছে চেপে বসতে চায়,
খুঁজি শব্দ তাকে আশ্বাস দেওয়ার আশায়।
মেঝেতে ছিরকুট্টি একরাশ বিপ্লব।
আয়না কুচি কুচি হয়ে টুকরো তার, আর প্রতিবিম্বে নারাজ।
অপার মহিমায় আদর  করে গাই
দুঃসময়ের গান.
আর কুলুঙ্গির প্রদীপে,পড়ে সর্ষের তেলে  টান।
বেশ দুঃখ দুঃখ খেলি,বেশ রক্ত রক্ত আকাশ…
গন্ধভরা পচা গলা সকাল.
তাতে দৈনিকের প্রথম পাতায় ঠাসা মৃত্যু
চুঁইয়ে পড়ে চায়ের পেয়ালায়…
চিনি পানসে হলে মেজাজ আসে।
তুমি শক্ত কেন,আরো মরতে পারো না?
আমার পালিয়ে যাওয়া তালে আরো
কারণ ফিরে পাবে।
যদি হাতছানিতে অসুর জেগে ওঠে,
বুক ফেঁড়ে সে, হৃদপিন্ডে গর্ত করে দেবে!
সেও তো বেশ ভালো…
আমার থুতুর মত জীবন –
জোড়া গান স্যালুট  তো পাবে!

Continue reading